lpg-gas-pricr-increase-in-kolkata-in-july
Advertisement

পুরো তথ্য জানতে পড়ুন পুরোটা।

আবার কি বাড়তে চলেছে ডোমেস্টিক এলপিজি গ্যাসের দাম? এই প্রশ্নই ভাবাচ্ছে মধ্যবিত্তকে। সাম্প্রতিককালে বিভিন্ন সময় দেখা গেছে যে ক্রমাগত শুল্ক বাড়ানো হয়েছে ডোমেস্টিক গ্যাসের ওপর। করোনা পরবর্তী সময়ে দেখা গেছে, গ্যাসের দাম বেড়েছে প্রায় ৫০০ টাকা! এমতাবস্থায় মধ্যবিত্তের নাভিশ্বাস ওঠার জো হয়েছে।

Advertisement

ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় সরকার এলপিজি সিলিন্ডারের ওপর শুল্ক ৫ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে করেছে ১৫ শতাংশ। এখন জানা যাচ্ছে তারা ডোমেস্টিক বা গার্হস্থ গ্যাসের উপর লাগাতে চলেছে সেস ট্যাক্স। জানা যাচ্ছে, এলপিজি সিলিন্ডার আমদানিতেও ১৫ শতাংশ কৃষি সেস আরোপ করা হবে। কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে জানানো হয়েছে ১ জুলাই থেকেই লাগু হবে এই নিয়ম। তবে যারা লিকুইড প্রোপেন, লিকুইড বিউটেন এবং উভয়ের মিশ্রণে তৈরি গ্যাস ব্যবহার করেন তাদের ক্ষেত্রে গ্যাসের দাম বাড়বে না।

Advertisement

আবারও ফ্রী তে ইন্টারনেট দেওয়ার ঘোষণা করলো জিও। কীভাবে পাবেন এই সুবিধা, জানুন বিস্তারিত।

ইন্ডিয়ান অয়েল কর্পোরেশন লিমিটেড, হিন্দুস্তান পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন লিমিটেড এবং ভারত পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন লিমিটেডের আওতায় যারা পড়েন তাদের ক্ষেত্রে গ্যাসের দাম বাড়বে না। আমাদের দেশে অধিকাংশ মানুষই এই তিনটে কোম্পানির গ্যাস ব্যবহার করেন বলে, মধ্যবিত্ত কিছুটা হলেও স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে পারে। আপাতত ডোমেস্টিক গ্যাসের দাম বাড়লেও তা দেশের অধিকাংশ মানুষকেই প্রভাবিত করবে না বলেই মনে করা হচ্ছে।

একইসঙ্গে জানা যাচ্ছে, তেল বিপণন সংস্থাগুলির এলপিজি গ্যাস আমদানি করতে আর কোন শুল্ক দিতে হবে না। তবে উপরিউক্ত তিনটি সংস্থা বাদে অন্যান্য গ্যাস সংস্থাগুলিকে দিতে হবে ১৫ শতাংশ ট্যাক্স। অভিজ্ঞ মহলের মতে, কেন্দ্রীয় সরকারের এই সিদ্ধান্ত অধিকাংশ মধ্যবিত্তকেই স্বস্তি যোগাবে। কেননা ডোমেস্টিক গ্যাসের দাম বাড়া সত্ত্বেও তাদের গ্যাসের দামে কোন প্রভাব পড়ছে না।