tarbandi-yojana-2023-apply
Advertisement

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উদ্যোগে কেন্দ্রীয় সরকার ভারতের কৃষকদের জন্য বারংবার বিভিন্ন ধরনের প্রকল্প, যোজনা কার্যকর করেছে। আর এবারে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে এমন এক যোজনা কার্যকর করা হয়েছে যার মাধ্যমে কৃষকরা নিজেদের ফসলকে অত্যন্ত সহজেই রক্ষা করতে পারবেন। সুতরাং অন্যভাবে বলা চলে কেন্দ্রীয় সরকারের এই যোজনার মাধ্যমে কৃষকরা আগামী দিনে ফসল বিক্রি করে অতিরিক্ত লাভ করতে পারবেন।

Advertisement

কেন্দ্র সরকারের পক্ষ থেকে কার্যকরী এই প্রকল্পটি তারবন্দি যোজনা (Tarbandi Yojana 2023) নামে বিশেষ পরিচিত। প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছে যে, ঝড়, বৃষ্টি, বন্যা, খরা সহ অন্যান্য প্রাকৃতিক দুর্যোগের পাশাপাশি পশু-পাখিরাও কৃষকদের ফসল নষ্ট করে থাকে। অনেক ক্ষেত্রে পশু-পাখিরা কৃষি জমিতে ঢুকে কৃষকদের সম্পূর্ণ ফসল নষ্ট করে দেয়, যার কারণে কৃষকদের বারংবার বিভিন্ন ধরনের ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়। আর তাতেই কৃষকদের সুবিধার দিকটি মাথায় রেখে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে কৃষকদের আর্থিকভাবে সহায়তা করার জন্য তারবন্দি যোজনা কার্যকর করা হয়েছে।

Advertisement

কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে প্রকাশিত তথ্য জানানো হয়েছে যে, তারবন্দি যোজনার (Tarbandi Yojana 2023) আওতায় কৃষকরা নিজেদের জমি তারবন্দি করার ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় খরচের ৫০ শতাংশ পেয়ে যাবে। অর্থাৎ অন্যভাবে বলা চলে যে, কৃষকদের আর্থিক বোঝা কমানোর জন্য কৃষকদের সম্পূর্ণ জমি তারবন্দি করার ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় অর্থের ৫০ শতাংশ কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে বহন করা হবে। তবে এক্ষেত্রে বলে রাখি যে, জমি তার বন্দি করার জন্য কৃষকদের সর্বোচ্চ ৪০ হাজার টাকা পর্যন্ত দেওয়া হয়ে থাকে।

দিদি নাম্বার ১ এ কিভাবে যোগ দেবেন। রইলো বিস্তারিত পদ্ধতি

তবে তারবন্দি যোজনার আওতায় আবেদনের ক্ষেত্রে কৃষকদের বেশ কতগুলি শর্ত মেনে চলতে হয়। আর কেন্দ্র সরকারের পক্ষ থেকে জারি করা এই শর্তগুলি হল:-
১. তারবন্দি যোজনার আওতায় নিজের নাম নথিভুক্ত করার ক্ষেত্রে একজন কৃষককে তিনি যে রাজ্যে বসবাস করছেন ওই রাজ্যে স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে।
২. এর পাশাপাশি সম্পূর্ণ জমিকে তারবন্দি করার ক্ষেত্রে একজন কৃষকের ন্যূনতম ০.৫ হেক্টর জমি থাকা আবশ্যক।
৩. তবে কোনো কৃষক যদি এই বিষয়ক অন্য কোন যোজনার আওতায় ইতিপূর্বে অনুদান পেয়ে থাকেন তবে তিনি তারবন্দি যোজনার আওতায় আবেদন জানতে পারবেন না।
এছাড়াও তারবন্দি যোজনার আওতায় আবেদনের ক্ষেত্রে একজন কৃষকের নিজস্ব ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থাকা আবশ্যক কারণ কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে তারবন্দি যোজনার টাকা সরাসরি কৃষকদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ট্রান্সফার করা হয়ে থাকে।

ব্যাংকের নিয়মে আনা হলো বড়ো পরিবর্তন। আপনার যদি ব্যাংকে বই থেকে থাকে তবে জেনে নিন এই গুরুত্বপূর্ণ আপডেট

সুতরাং আপনিও যদি আপনার জমিরিকে তারবন্দি করার মাধ্যমে সুরক্ষিত করতে চান এবং তারবন্দি যোজনার আওতায় নিজের নাম নথিভুক্ত করতে চান তবে আপনাকে নিজের নিকটবর্তী কৃষি অফিসে গিয়ে এই যোজনার আওতায় নিজের নাম নথিভুক্ত করতে হবে। তবে এই যোজনার আওতায় নাম নথিভুক্ত করার ক্ষেত্রে বেশ কতগুলি নথি প্রয়োজন হয়ে থাকে। আর এই নথিগুলি হল,
১. আবেদনকারীর আধার কার্ড।
২. আবেদনকারী বর্তমানে যে রাজ্যে বসবাস করছেন উক্ত রাজ্যের স্থায়ী বাসিন্দা হওয়ার প্রমাণপত্র।
৩. জমির প্রমাণ্য নথি।
৪. আবেদনকারীর রেশন কার্ড।
৫. সচিত্র পরিচয় পত্র।
৬. উক্ত কৃষকের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের সমস্ত তথ্য।
৭. আবেদনকারীর বৈধ মোবাইল নম্বর।
৮. উক্ত কৃষকের সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজের ছবি।