who-does-not-have-to-pay-income-tax
Advertisement

ভারতের প্রত্যেক নাগরিকের কর্তব্য হলো নিজেদের আয়কর সঠিক সময়ে জমা দেওয়া। আয়কর রিটার্ন কিংবা ট্যাক্স রিটার্ন-এর অর্থ হলো আর্থিক বছরে আপনার মোট রোজগারের যাবতীয় তথ্য এবং তার ওপর ভিত্তি করে নির্দিষ্ট পরিমাণ ট্যাক্স। নির্দিষ্ট পরিমাণ আয় এবং সেই মোতাবেক ট্যাক্স স্ল্যাবের ওপর ভিত্তি করে কর নেওয়া হয়। পরবর্তীকালে অবশ্য ট্যাক্সের কিছুটা পরিমাণ আয়কর বিভাগ থেকে ‘লস ক্যারি-ফরওয়ার্ড’ এবং ‘রিফান্ড ক্লেম’ করে ফিরিয়ে দেওয়া হয় করদাতাকে। আয়কর আইনের অধীনে, বিভিন্ন ইনকাম ক্যাটাগরির মানুষ তার জমা করা করের ভিত্তিতে কিছু না কিছু রিটার্ন পেয়েই থাকেন।

Advertisement

প্রত্যেক বছর ১ এপ্রিল থেকে শুরু হয় নতুন অর্থ বর্ষ। ১ এপ্রিল থেকে পরবর্তী বছরের ৩১ মার্চ পর্যন্ত এই অর্থ বর্ষ পরিণত হয়। অর্থাৎ এই বছর ১ এপ্রিল শুরু হয়েছে ২০২৩-২৪ অর্থ বর্ষ। আর এই অর্থবর্ষে আয়কর জমা করানোর শেষ তারিখ ৩১ জুলাই। এই নতুন নির্দেশিকা অনুযায়ী যারা করযোগ্য ব্যক্তি রয়েছেন তাদের এই তারিখের মধ্যেই কিন্তু আয়কর রিটার্ন দাখিল করতে হবে। আয়কর দাতা নতুন কিংবা পুরনো নিজের সুবিধা মত ট্যাক্স ব্যবস্থা নির্বাচন করতে পারবেন। আপনার ট্যাক্স রেজিম অনুযায়ী আপনার স্ল্যাব আলাদা হবে।

Advertisement

তবে একইসঙ্গে এই কর দেওয়া নিয়ে বেশ কয়েকটি নতুন নিয়ম এনেছে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রক। এই নিয়মগুলোর আওতায় পড়লে আপনি কিছু ট্যাক্স রিটার্ন পাওয়ার পাশাপাশি সম্পূর্ণভাবে আয়কর থেকে মুক্তও হতে পারবেন। কিভাবে? আসুন জেনে নেওয়া যাক। নতুন ট্যাক্স ব্যবস্থায়, ৭ লক্ষ টাকা পর্যন্ত আয়কে করমুক্ত করা হয়েছে। অর্থাৎ আপনার বার্ষিক আয় তবে ৭ লক্ষ টাকা কিংবা তার কম হয় তবে আপনাকে কোন ট্যাক্স দিতে হবে না। এছাড়াও আপনি পুরোনো ব্যবস্থায় থাকলে পেতে পারেন স্ট্যান্ডার্ড ডিডাকশন সুবিধা।

আরও পড়ুন:- অল্প টাকায় ব্যবসা শুরু করতে চান। শুরু করুন এই ব্যবসা। মাস গেলে হাতে আসবে ভালো পরিমাণ টাকা।

একইসঙ্গে ২০২৩ বাজেট পেশ করার সময় কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন জানিয়েছিলেন, এই নতুন ট্যাক্স ব্যবস্থায়, বেতনভোগী এবং পেনশনভোগীরা ৫০ হাজার টাকার স্ট্যান্ডার্ড ডিডাকশনের সুবিধা পাবেন। এছাড়াও আপনাদের আগেই বলেছি বার্ষিক ৭ লক্ষ টাকা পর্যন্ত আয় হলে কর থেকে আপনি মুক্ত। সুতরাং ২০২৩-২৪ অর্থবর্ষে যদি আপনি নতুন ট্যাক্স ব্যবস্থা বেছে নেন, তাহলে আপনার ট্যাক্স দিতে লাগবে না, যদি আপনি ওই আয়সীমার নিচে হন। এবছরের বাজেটে ধারা 87A-এর অধীনে এই কর ছাড় দেওয়া হয়েছে।